Our Members

Branch Name : Jhenaidah ,   Khulna
Branch Code : 084

"শ্রী বাচ্চু কুমার ঘোষ এখন ভাল আছেন"

ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর এলাকার " সাতক্ষীরা ঘোষ ডেইরী " এর মালিক শ্রী বাচ্চু কুমার ঘোষ বলেন-মিষ্টি ও কোমল পানিয় ব্যবসা করে তিনি এখন ভাল আছেন। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর কোটচাঁদপুর শাখার বিনিয়োগের সঠিক ব্যবহার করে তিনি এই সফলতা অর্জন করেছেন। শ্রী বাচ্চু কুমার ঘোষ পুঁজির অভাবে তার মিষ্টি ও কোমল পনিয়ের ব্যবসা সম্প্রসারন করতে পারছিলেন না। একদিন " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর কোটচাঁদপুর শাখার ফিল্ড কর্মকর্তার মাধ্যমে জানতে পারলেন এই ব্যাংকটি সৎ ও নিষ্ঠাবান ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে বিনা জামানতে বিনিয়োগ প্রদান করে।
ফিল্ড কর্মকর্তার পরামর্শ অনুযায়ী শ্রী বাচ্চু কুমার ঘোষ ব্যাংকে যান এবং শাখা ব্যাস্থাপক মোঃ সাইফুল ইসলাম এর সাথে কথা বলেন। শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ সাইফুল ইসলাম ব্যবসার বিস্তারিত জেনে গত ২০১২ সালের ২৬ এপ্রিল প্রথমে তাকে ১.০০ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। এই বিনিয়োগের টাকা দিয়ে দোকানের মালামাল ক্রয় করে ব্যবসা সম্প্রসারন করে নতুন উদ্যামে ব্যবসা পরিচালনা শুরু করেন। এরপর আর বাচ্চু কুমার ঘোষকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নী। একে একে বিনিয়োগ নিয়ে প্রতিবারই সময়মত পরিশোধ করেছেন। অবশেষে গত ২০১৫ সালের ১৪ মে ১.০০ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ নিয়ে তিনি তার ব্যবসাকে পুনরায় সম্প্রসারন করেন। বর্তমানে তার দোকানের মালামাল পরিপূর্ন, বিক্রি যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে তেমনি লাভের পরিমানও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে দিনে দিনে তিনি সফল ব্যবসায়ী হতে চলেছেন। সব কিছু সম্ভব হয়েছে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহযোগিতা নিয়ে।

Branch Name : Sherpur,   Dhaka
Branch Code : 086

"ডিএমসিবিএল, আমার ভাগ্যকে বদলে দিয়েছে"

জামালপুর জেলা শহরের বকশীগঞ্জ এলাকার " খোকন গেঞ্জি হাউজ " এর মালিক মোঃ নঈম মাহমুদ বলেন " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর শেরপুর শাখা তার ভাগ্যকে বদলে দিয়েছে। ব্যাংকটির বিনিয়োগ কাজে লাগিয়ে তিনি এখন একজন সফল ব্যবসায়ী। গেঞ্জি ব্যবসায়ী নাঈম মাহমুদ নগদ পুঁজির আভাবে ব্যবসা সম্প্রসারন করতে পারছিলেন না। একদিন তিনি দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ এর শেরপুর শাখার ফিল্ড কর্মকর্তার মাধ্যমে জানতে পারলেন ব্যাংকটি পরিশ্রমী, সৎ ও নিষ্ঠাবান ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে বিনা জামানতে বিনিয়োগ প্রদান করে।
ফিল্ড কর্মকর্তার পরামর্শ অনুযায়ী একদিন নাঈম মাহমুদ ব্যাংকে গিয়ে শাখা ব্যাস্থাপক মোঃ হুমায়ুন কবির এর সাথে কথা বলেন। শাখা ব্যবস্থাপক ব্যবসায়ীক অভিজ্ঞতা ও উৎসাহ দেখে প্রথমে ১.০০ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ দিলেন। এর পর আর নাঈম মাহমুদকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নী। একে একে বিনিয়োগ নিয়ে প্রতিবার সময় মত পরিশোধ করেছেন। অবশেষে ২০১৫ সালের ৩০ মার্চ ১১০০ লক্ষ টাকার বিনিয়োগ নিয়ে নাঈম মাহমুদ তার ব্যবসার ব্যাপক সম্প্রসারন করেছেন। এখন তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। সব কিছু সম্ভব হয়েছে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর বিনিয়োগ সুবিধা কাজে লাগিয়ে। এ কারনেই নাঈম মাহমুদ মনে করেন " ডিএমসিবিএল " তাকে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হতে সাহায্য করেছে।

Branch Name : Habigonj,   Sylhet
Branch Code : 088

"সফল উদ্যোক্তা মোঃ ইব্রাহিম খলিল "

আমি মোঃ ইব্রাহিম খলিল " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর হবিগঞ্জ শাখার একজন বিনিয়োগ গ্রহিতা। আমার একটি ছোট মুদির দোকান ছিল যেখানে পুঁজির পরিমান ছিল খুবই সামান্য। আমার স্বপ্ন ছিল ব্যবসাকে আরও বড় করা। কিন্তু পুঁজির অভাবে ব্যবসাকে বড় করতে পারছিলাম না। এমন সময় আমার এক ব্যবসায়ী বন্ধু " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর বিজ্ঞাপন দেখে এর সহজ শর্তে বিনিয়োগ প্রদানের কথা বলেন।
তার কথা মত একদিন ব্যাংকের হবিগঞ্জ শাখায় চলে আসি এবং শাখা ব্যবস্থাপক জনাব আব্দুল মান্নান এর সাথে দেখা করে আমার ব্যবসার কথা বলি। শাখা ব্যবস্থাপক ব্যবসার প্রতি আমার উৎসাহ উদ্দীপনা দেখে আমাকে ক্ষুদ্র বিনিয়োগ প্রকল্পের আওতায় সহজ শর্তে জামানত বিহীন ৫০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। আমি দৈনিক কিস্তির মাধ্যমে খুব সহজেই মেয়াদের মধ্যে বিনিয়োগের সম্পূর্ন টাকা পরিশোধ করতে সক্ষম হই। প্রথম বিনিয়োগ পরিশোধের পর পুনরায় ১ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করি। আমার ছোট মুদি দোকান বড় হতে থাকে এবং ব্যবসাও ধীরে ধীরে প্রসার লাভ করে। এভাবে আমি ৭ বার বিনিয়োগ গ্রহন করি। বর্তমানে আমার ব্যবসায় ৪ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ চলমান আছে। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ আজ আমার স্বপ্ন পুরন করেছে। জামানত বিহীন সহজ শর্তে বিনিয়োগ প্রদানের জন্য আমি ব্যাংকের নিকট চির কৃতজ্ঞ। আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Matiranga,   Chattogram
Branch Code : 090

"জামানত বিহীন বিনিয়োগ আমার স্বপ্ন পূরণের সিড়ি"

খাগড়াছড়ি জেলার জিরো মাইল এলাকার " সাগর ষ্টোর " এর মালিক আমি মোছাম্মৎ সেফুন্নাহার বেগম। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর মাটিরাঙ্গা শাখা আমার ব্যবসাকে বড় হতে এবং আমাকে ব্যবসায়ী হিসেবে সফল হতে সহায়তা করেছে। আমি পুর্বে গ্রামে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের কাজ করতাম যা দিয়ে পরিবারের ভরন-পোষন করা খুবই কঠিন ছিল। এমন সময় আমি জানতে পারলাম জিরো মাইলের জনৈক ব্যবসায়ী জনাব মোঃ নাছির উদ্দিন সম্পূর্ন চালু অবস্থায় তার কুলিং কর্নার ব্যবসাটি বিক্রয় করে অন্যত্র চলে যাবেন।
তখনই সিদ্ধান্ত নেই ঐ ব্যবসাটি আমি কিনে নিব। যেই ভাবা সেই কাজ, নিজেদের কিছু সঞ্চয় ও নিকট আত্মীয়দের নিকট থেকে কিছু টাকা ধার নিয়ে জনাব নাছির উদ্দিনের ব্যবসাটি কিনে নেই এবং নিজেই ব্যবসাটি শুরু করি। তখনই পুঁজির সংকট হলে জিরো মাইলের ইজারাদার ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ মহিউদ্দিন চৌধুরীর মাধ্যমে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর মাটিরাঙ্গা শাখার সন্ধান পাই। এবং জানতে পারি যে এই ব্যাংক আমার মত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বিশেষ করে মহিলা ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিনা জামানতে বিনিয়োগ প্রদান করে থাকে। পরবর্তীতে ব্যাংকের ফিল্ড কর্মকর্তা জনাব আশীষ কুমার চাকমার সাথে যোগাযোগ হয় এবং তার মাধ্যমে শাখা ব্যবস্থাপক জনাব মোঃ মেজবাহ উদ্দিনকে অবহিত করি। শাখা ব্যবস্থাপক আমার ব্যবসার প্রতি শ্রদ্ধা ও উৎসাহ দেখে অগ্রাধীকার ভিত্তিতে আমাকে ১.০০ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। ১ম বিনিয়োগের টাকায় মালামাল কিনে দোকানে উঠাই ইহাতে বিক্রি অনেক বেড়ে যায় এবং লাভ হতে থাকে। পূর্বে আত্মীয় স্বজন হতে নেয়া ধার পরিশোধ করি, ব্যাংকের কিস্তিও নিয়মিত পরিশোধ করি। বর্তমানে আমার ১.২০ লক্ষ টাকার বিনিয়োগ চলমান আছে। এখন আমাকে পুঁজি নিয়ে আর ভাবতে হয় না। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " আমাকে এক নতুন স্বপ্নের ঠিকানা দিয়েছে। তাই এই ব্যাংকটির প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Bhola,   Barishal
Branch Code : 094

"ভাই ভাই ট্রেডার্স ডিএমসিবিএল এর নক্ষত্র"

আমি মোঃ নান্নু হাওলাদার " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর ভোলা শাখার একজন বিনিয়োগ গ্রাহক। আমি বিগত ২০০২ সাল হতে ২০০৫ সাল পর্যন্ত অন্যের দোকানে চাকুরী করি। এরপর ২০০৬ সালে আমি নিজেই একটি কীটনাশকের ব্যবসা শুরু করি, যেখানে পুঁজির পরিমাণ ছিল খুবই সামান্য। আমার স্বপ্ন ছিল ব্যবসাকে আরো বড় করা, কিন্তু পুঁজির অভাবে ব্যবসা বড় করতে পারছিলাম না। এমন সময় আমার এক ব্যবসায়ী বন্ধু আমাকে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহজ শর্তে বিনিয়োগ প্রদানের কথা বলে।
তার কথামত একদিন ব্যাংকের ভোলা শাখায় চলে আসি এবং শাখার ব্যবস্থাপকের সাথে কথা বলে আমার ব্যবসার কথা বলি। শাখা ব্যবস্থাপক আমাকে ক্ষুদ্র বিনিয়োগ প্রকল্পের আওতায় সহজ শর্তে জামানত বিহীন ১,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। আমি কিস্তির মাধ্যমে খুব সহজেই মেয়াদের মধ্যে বিনিয়োগের টাকা পরিশোধ করতে সক্ষম হই। প্রথম বিনিয়োগ পরিশোধের পর পূনরায় ২,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহণ করি। আমার কীটনাশকের দোকান এক সময়ে ভাই ভাই ট্রেডার্স নামে সুনাম লাভ করে। এভাবে ধীরে ধীরে আমার ব্যবসার পরিধি বড় হতে থাকে এবং এক পর্যায়ে মেসার্স ভাই ভাই টেডার্সের পরিধি বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ০৩(তিন) টি দোকানে উন্নীত হয়। এ পর্যন্ত আমি পর্যায়ক্রমে ০৭(সাত) বার বিনিয়োগ গ্রহণ করেছি। বর্তমান ব্যবস্থাপক জনাব মহিউদ্দিন আহমেদ এর প্রেরণায় আমার ব্যবসায় ৭,০০,০০০/- টাকার বিনিয়োগ চলমান আছে। আমি অত্র " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সাফল্য ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Kurigram,   Rangpur
Branch Code : 095

"মোঃ আতিকুর রহমান মানিক এর কষ্টের পরিসমাপ্তি"

আমি নিজস্ব স্বল্প মূলধনে কুড়িগ্রাম শহরের প্রান কেন্দ্রে শহীদ জিয়া বাজারে, আমার পরিবেশক ব্যবসা ( সুপার স্টোর ইলেকট্রনিক সামগ্রী ) অতি কষ্ঠে পরিচালনা করতাম। পর্যাপ্ত মূলধনের অভাবে ব্যবসা প্রসার করতে পারছিলাম এবং হতাশায় দিন দিন আমার ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসা হচ্ছিল হঠাৎ একদিন ব্যাংকের ফিল্ড অফিসার মোঃ আবু হানিফ এর মাধ্যমে জানতে পারলাম " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ ", কুড়িগ্রাম শাখা বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে বিনিয়োগ প্রদান করে।

ফলে আমি উক্ত ব্যাংকে যাই ও চলতি হিসাব চালু করি এবং নিয়মিত চলতি হিসাবে টাকা জমা করি। আমার দৈনিক ব্যবসায়ীক লেনদেনে সন্তুষ্ট হয়ে ব্যাংকের ব্যবস্থাপক আমাকে জামানত বিহীন সহজ শর্তে প্রাথমিক অবস্থায় ৩,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ প্রদান করে। বর্তমানে আমার সদর থানার শহীদ জিয়া বাজারে দুইটি বেশ ভালোভাবে চলছে এবং আমার আর্থিক অবস্থা স্বচ্ছল হয়েছে। বর্তমান ব্যবস্থাপকের প্রেরণায় বর্তমানে আমি উক্ত ব্যাংক হতে ১৩,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করেছি এবং ভবিষ্যতে উক্ত ব্যাংকের সহায়তায় ব্যবসায় আরোও সফল হতে পারবো এই প্রত্যাশা করছি।

< Prev123456789Next