Our Members

Branch Name : Manikdi,   Dhaka
Branch Code : 014

"ঝামেলাবিহীন বিনিয়োগ"

আমি মোঃ জহিরম্নল ইসলাম বাবুল ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের পশ্চিম ভাষানটেক এলাকার একজন মুদি ব্যবসায়ী। আমি যখন ব্যবসা শুরু করি তখন আমান পুঁজি ছিল মাত্র ১৫,০০০/- টাকা। ব্যবসা চলছিল মোটামুটি কিন্তু পুঁজির অভাবে ব্যবসাকে ভালভাবে চালাতে পারছিলাম না। একদিন " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর তৎকালীন মাঠকর্মী কামরম্নজ্জামান ভাইয়ের মাধ্যমে জানতে পারলাম যে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " সৎ ও পরিশ্রমী ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ প্রদান করে।
মাঠকর্মী ভাইয়ের পরামর্শ অনুযায়ী আমি একদিন ব্যাংকে গিয়ে শাখা ব্যবস্থাপক রম্নহুল আমিন স্যারের সাথে দেখা করে বিস্তারিত জানাই। তিনি আমার অভিজ্ঞতা ও উৎসাহ দেখে প্রথমে ১০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। যা ২০০৩ সালের কথা। পরবর্তীতে ক্রমান্বয়ে আরও বিনিয়োগ নিয়ে দৈনিক কিস্তির মাধ্যমে সময়মত পরিশোধ করি। এতে করে আমার ব্যবাসার পরিধি বড় হতে থাকে। বর্তমানে আমার ৫.০০ লক্ষ টাকার বিনিয়োগ চলমান আছে। এই ব্যবসা থেকে আমি আমার পরিবারের খরচ ও অন্যান্য খরচ মিটিয়ে সাভারে জমিও ক্রয় করেছি। সর্বোপরি এই ব্যাংক থেকে বিনিয়োগ পেতে কোন ঝামেলা পোহাতে হয় না এবং দ্রম্নত বিনিয়োগ পাওয়া যায়। এই ব্যাংকের বিনিয়োগ কাজে লাগিয়ে আমি আজকে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ আজ আমার স্বপ্ন পুরন করেছে। আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Babubazar,   Dhaka
Branch Code : 016

"ডিএমসিবিএল আমার অর্থনৈতিক সচ্ছলতার প্রেরনা দিয়েছে "

ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার ৫ নং জুম্মন বেপারী লেন এলাকায় মেসার্স আফরোজা প্লাষ্টিক সেন্টার এর স্বত্বাধিকারী আমি মোঃ আব্দুল হক এখন একজন সফল ব্যবসায়ী। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর বাবু বাজার শাখা থেকে বিনিয়োগ নিয়ে কাজে লাগিয়ে আমি আমার ব্যবসা সস্প্রসারন করি। আমি এক সময় পূজিঁর অভাবে ব্যবসা সম্প্রসারন করতে পারছিলাম না।
একদিন আমি ডিএমসিবিএল এর বাবু বাজার শাখার ফিল্ড অফিসার জনাব মোঃ আরিফুল ইসলামের সঙ্গে দেখা করে জানতে পারলাম যে ব্যাংকটি সৎ ও উদ্যমী ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে জামানত বিহীন ইসলামী শরীয়াহ্ মোতাবেক বিনিয়োগ প্রদান করে থাকে। তিনি আমাকে ব্যাংকের ব্যবস্থাপকের সাথে সাক্ষাত করতে বলেন। তার কথা অনুযায়ী আমি বাবু বাজার শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ শাখওয়াত হোসেন সাহেবের সাথে দেখা করি। শাখা ব্যবস্থাপক আমার ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা ও ব্যবসার প্রতি উৎসাহ দেখে গত ২২.০৪.২০১৩ তারিখে ক্ষুদ্র বিনিয়োগের আওতায় সহজ শর্তে জামানত বিহীন ১ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। এরপর আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সুযোগ সুবিধাগুলো বুঝতে পেরে একের পর এক বিনিয়োগ গ্রহন করে নিয়োমিত পরিশোধ করি। এভাবে আমার ব্যবসা আসেত্ম আসেত্ম সম্প্রসারন করতে শুরম্ন করে। আমার সংসারে এখন অর্থনৈতিক সচ্ছলতা ফিরে এসেছে। অবশেষে ০৫.০৪.২০১৫ইং তারিখে আমি অত্র ব্যাংক থেকে ১০ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করি। এ বিনিয়োগ কাজে লাগিয়ে আমি এখন একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। আমি মনে করি আমার সফলতার পেছনে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর বাবু বাজার শাখার ভুমিকা অপরিসীম। শাখার সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও প্রতিষ্ঠানের সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Manikgonj ,   Dhaka
Branch Code : 019

"মোঃ মনির হোসেন এর পরিবার এখন সুখি পরিবারের প্রতিচ্ছবি"

মানিকগঞ্জ শাখার গ্রাহক মোঃ মনির হোসেন এর পরিবার এখন একটি সুখী পরিবারের প্রতিচ্ছবি, মোঃ মনির হোসেন আজ সফলতার অনেক দুর এগিয়ে এসেছেন। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর মানিকঞ্জ শাখার দেয়া বিনিয়োগের সঠিক ব্যবহার করে মোঃ মনির হোসেন আজ এ সফলতা অর্জন করেছেন। মোঃ মনির হোসেন পুজির অভাবে দাদন ব্যবসায়িদের কাছ থেকে দাদন নিয়ে ঘুরে ঘুরে প্রথমে মালামাল ক্রয় বিক্রয় করতেন। মালামাল ক্রয় বিক্রয় করে প্রতিদিন যে টাকা লাভ হতো তার সিংহ ভাগই দাদন ব্যবসায়িদেরকে দিয়ে দিতে হতো।
এ ভাবে শত কষ্ট করার পরও অভাব যচ্ছিলনা, যার কারনে জীবনে হতাশা নেমে আসে। মোঃ মনির হোসেন এর ক্রয়কৃত মালামাল যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিক্রয় করতেন সেখানে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর ফিল্ড অফিসার জনাব মোঃ বিল্লাল হোসেন এর সাথে পরিচয় হয়। তিনি বলেন, আমার সমস্যার কথা শুনে ফিল্ড অফিসার জনাব মোঃ বিলস্নাল হোসেন মানিকগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক এর কাছে নিয়ে যান। শাখা ব্যবস্থাপক জনাব মোঃ আরিফুর রহমান অমার সব কথা শোনেন। সব শুনে তিনি আমাকে একটা দোকান নেয়ার কথা বলেন। তার পরামর্শে আমি একটি ছোট্ট দোকান নিয়ে ব্যবসা শুরম্ন করি। প্রথমেই মার্চ ০৩ ২০১২ইং তারিখে ৫০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করি। বিনিয়োগটি নিয়ে আমার দাদন এর টাকা নেয়র উপর নির্ভরতা কমে। এতে অল্প দিনেই বাবসার পুঁজি বারতে থাকে। এভাবে তিনি পর পর ০৭ (সাত) বার বিনিয়োগ গ্রহন করে প্রতিবারই সময়মত পরিশোধ করেছেন। সর্বশেষ ০৬ এপ্রিল ২০১৫ইং তারিখে ৪,০০,০০০/- টাক বিনিয়োগ নিয়ে তার ব্যবসাকে পুনরায় সম্প্রসারন করেছেন, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মালামালে পূর্ণ, ক্রয় বিক্রয়ের পরিমান বেরেছে এতে লাভের পমিান বৃদ্ধি পেয়েছে । বর্তমানে তিনি তার ব্যবসা ও পরিবার পরিজন নিয়ে সুখে আছেন। সব কিছু সম্ভব হয়েছে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহযোগিতা নিয়ে । আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Mawna,   Dhaka
Branch Code : 020

"এখন আমাকে আর পুজি নিয়ে ভাবতে হয় না"

আমি মোঃ গোলাম মোস্তফা দুই ভাইয়ের মধ্যে সবার বড়। দরিদ্র পরিবারের বড় সমত্মান হবার কারনে মাত্র এসএসসি পর্যমত্ম পড়ে আমাকে সংসারের হাল ধরতে হয়। বরমী বাজারে ছোট একটি দোকান দিয়ে ইলেকট্রনিক্র মেরামতের ব্যবসা শুরম্ন করি। পুজির স্বল্পতার কারনে ব্যবসার আকার বাড়াতে পারিনি। পরবর্তীতে একদিন পাশের এক ব্যবসায়ী (অত্র ব্যাংকের গ্রহক) জনাব মোঃ আব্দুল মালেক এর মাধ্যমে জানতে পারলাম দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ এর মাওনা শাখায় সহজ শর্তে বিনিয়োগ দিয়ে থাকে।
সে সুবাধে অত্র ব্যাংকের ফিল্ড অফিসার মোঃ শাজাহান সঙ্গে আলাপ করে ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ আনোয়ার হোসেন সাহেবের সাথে সাক্ষাত করি। ব্যবস্থাপক আমার সব কথা শুনে আমার দোকান পরিদর্শন করে আমাকে ১২.০১.২০০৯ ইং তারিখে প্রথমে ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ প্রদান করে। এভাবে একের পর এক বিনিয়োগ গ্রহন করে আমি দৈনিক কিসিত্মর মাধ্যমে খুব সহজেই মেয়াদের মধ্যে বিনিয়োগের টাকা পরিশোধ করতে সাক্ষম হই। এভাবে আমি ১১ বার বিনিয়োগ গ্রহন করি। বর্তমানে আমার ব্যবসায় ২ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ চলমান আছে। দীর্ঘদিন যাবত ব্যবসার আয় দিয়ে দৈনন্দিন খরচ মিটিয়ে কিছু কিছু সঞ্চয় করে বরমী বাজারে আরো একটি দোকান দেই। বর্তমানে আমার দুইটি দোকান চালু রয়েছে। দোকানের আয় থেকে আমি একটি বাড়ী কিনি। এক সময় যখন আমার পুজিঁর অভাব ছিল তখন " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ দিয়ে আমার পুজিঁর অভাব দুর করেছে। সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ প্রদানের জন্য আমি ব্যাংকের কাছে চিরকৃতজ্ঞ। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

Branch Name : Narayangonj ,   Dhaka
Branch Code : 022

"ডিএমসিবিএল, মোঃ বিল্লাল হোসেন এর স্বপ্ন পুরন করেছে"

নারায়নগঞ্জের এস এম মালেহ রোড সংলগ্ন টানবাজার এলাকার " লামিয়া এন্টারপ্রাইজের " মালিক মোঃ বিল্লাল হোসেন বলেন " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " তার অধরা স্বপ্ন পূরনে সহায়তা করেছে, বাড়িয়েছে ব্যবসার পরিধী, প্রতিষ্ঠিত করেছে সফল ব্যবসায়ী হিসেবে। নগদ পুজির অভাবে ব্যবসা সম্প্রসারন করতে পারছিলেন না মোঃ বিলস্নাল হোসেন । এদিকে লেখাপড়া তেমন না জানার কারনে ব্যাংকের ব্যাপারে বুঝতেন না তাই ব্যাংকে কোন একাউন্ট হিসাব খোলা হয়নী।
এভাবেই স্বল্প পুজি নিয়েই কোন রকম ব্যবসা করছিলেন । ব্যাংক হিসাব না থাকা ও ব্যাংক সম্মন্ধ্যে না জানার কারনে কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠান লোন দিতে আগ্রহ দেখাতো না । এরই মধ্যে নারায়নগঞ্জ শাখার ফিল্ড অফিসার জনাব মোঃ মাসুদুর রহমান আমার প্রষ্ঠিানে এসে আমাকে ব্যাংকের বিনিয়োগ সম্মন্ধ্যে অবগত করেন। ফিল্ড অফিসার বলেন ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের জামানত বিহীন বিনিয়োগ প্রদান করে তাদের আর্থিক সাফল্য এনে দেয়ায় " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর মুল লক্ষ্য। পরবর্তিতে নারায়নগঞ্জ শাখায় এসে ব্যাবস্থাপক জনাব মোহাম্মদ আলী এর সাথে দেখা করি এবং আমার সমস্যার কথা বলি, তিনি আমার কথা শুনে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ১১.০৬.২০০৫ইং তারিখে প্রথমে ১০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ প্রদান করেন। প্রথম বিনিয়োগ পরিশোধের পর পুনরায় ১৫,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করি । তিনি বলেন তারপর থেকে আমাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নী " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " বিনিয়োগ নিয়ে ব্যবসা করে দোকানের জন্য জায়গা কিনেছি, এখন আর দোকান ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করতে হয়না। এভাবে পর পর ২৪ বার বিনিয়োগ গ্রহন করে সঠিক ভাবে পরিশোধ করেছি। বর্তমানে ১৫,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ পরিচালনা করছি। আমি এখন সমাজে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " সহজ শর্তে জামানত বিহীন বিনিয়োগ আজ আমার স্বপ্ন পুরন করেছে। আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি ।

Branch Name : Savar,   Dhaka
Branch Code : 024

"ডিএমসিবিএল, মোঃ নুরুল ইসলামকে অশার আলো দেখিয়েছে "

সাভার শাখার গ্রাহক মোঃ নুরম্নল ইসলাম তার পরিবার পরিজন নিয়ে চিন্তামুক্ত কারন তার পাশে আছে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " । মোঃ নুরম্নল ইসলাম আজ একজন সফল মানুষের দৃষ্টান্ত তিনি আজ অনেক দুর এগিয়ে এসেছেন। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সাভার শাখার দেয়া বিনিয়োগের সঠিক ব্যবহার করে মোঃ নুরম্নল ইসলাম আজ এ সফলতা অর্জন করেছেন।

মোঃ নুরম্নল ইসলাম তার নিজের সামান্য সঞ্চয় দিয়ে জামগড়া ছয়তলা মোল্লা মার্কেটের সামনে ছোট্ট একটা দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরম্ন করেন। নগত টাকার অভাবে দোকানে মালামাল তুলতে পারছিলেন না যার কারনে দোকানে বেচা কেনা ভালো হতোনা । সামান্য আয় দিয়ে তার সংসার চালানোও কষ্টকর হচ্ছিল। তিনি বলেন বিনিয়োগের জন্য অনেক বিনিয়োগ দানকারি প্রতিষ্ঠানে গিয়েছি, কিন্তুু তারা ছোট্ট দোকান ও দোকানের জামানত না থাকার কারনে বিনিয়োগ দিতে চাচ্ছিলেন না নিরম্নপায় হয়ে ব্যবসা গুটিয়ে ফেলতে সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলাম। হতাশার এই মুহুর্তে " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সাভার শাখার ফিল্ড অফিসার মোঃ মনিরম্নজ্জামান বিনিয়োগ গ্রহন সম্পর্কে আমাকে অভিহিত করেন। এত সহজ শর্তে বিনা জামানতে বিনিয়োগ পাওয়া যায় আমি ভাবতে পারিনি । তার পরামর্শে আমি শাখয় যাই। শাখায় গেলে ব্যবস্থাপক জনাব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম আমাকে বিনিয়োগের খুটিনাটি বুঝিয়ে বলেন। প্রথমে ০১-১১-২০০৯ইং তারিখে ২০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করে এ পর্যমত্ম ১২ বার বিনিয়োগ গ্রহন করে প্রতিবারই নিয়ম অনুযায়ী পরিশোধ করেছি। সর্বশেষ ১,০০,০০০/- টাকা বিনিয়োগ গ্রহন করে ব্যবসার পরিধী আরো বাড়িয়েছি । এখন মোঃ নুরম্নল ইলামের দুটি ব্যবসা পতিষ্ঠান। এই ব্যবসা থেকে আয় করে জামগড়ায় একটু জায়গা কিনেছেন যা তিনি কখনও কল্পনা করতে পারেনি। তিনি বলেন এখন আর আমার ব্যবসার মুলধন, বাসস্থান, পরিবারের চাহিদা মেটানো নিয়ে চিন্তা করতে হয়না। " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " আমার মুলধনের চাহিদা পুরন করে থাকে। ব্যাংকটির সহজ শর্তে জামানত বিহিন বিনিয়োগ আজ আমার স্বপ্ন পুরন করেছে। জামানত বিহীন সহজ শর্তে বিনিয়োগ প্রদানের জন্য আমি ব্যাংকের কাছে চিরকৃতগ। আমি " দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিঃ " এর সমৃদ্ধি ও উন্নতি কামনা করছি।

< Prev123456789Next